বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৫৯ অপরাহ্ন

বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে যেতে পথে পথে বাধা

বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে যেতে পথে পথে বাধা

স্বদেশ ডেস্ক:

রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশকে কেন্দ্র করে আশপাশের জেলার রাজশাহীগামী সকল গাড়ী ও মাইক্রোবাস থামিয়ে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নয়া দিগন্তের বগুরা ও নাটোর সংবাদদাতা জানিয়েছেন, সমাবেশে যাওয়ার পথে অঘোষিত পরিবহন ধর্মঘট, পথে পথে পুলিশী তল্লাশী, বাধা সহ নানাহয়রানী শিকার হতে হয়েছে বিএনপি নেতাকর্মীদের।

নাটোরের সিংড়া সংবাদদাতা জানান, হঠাৎ করে রোববার সকাল থেকে নাটোরের সিংড়ার বাসষ্ট্যান্ডের ওভার ব্রীজের নিচে চেক পোস্ট বসিয়ে বিভিন্ন বাসে ও প্রাইভেট গাড়ীতে তল্লাসী চালায় সিংড়া থানা ও ট্রাফিক পুলিশ। বাধ্য হয়ে গাড়ীগুলো ফিরে যায়। এতে সাধারণ জনগণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

সরোজমিনে সকাল ১০টায় সিংড়া বাসষ্ট্যান্ডে গিয়ে দেখা যায়, রাজশাহীগ্রামী নান্নু এন্টার প্রাইজ বাস যাত্রীদের ভাড়া ফিরত দিয়ে গাড়ী থেকে থামিয়ে দিচ্ছে। বিষয়টি জানতে চাওয়া হলে বাসের সুপার ভাইজার বলেন, পুলিশ গাড়ী যেতে দিচ্ছে না। তাই বাধ্য হয়ে ফিরে যাচ্ছি।

কথা হয় সিংড়া গোল-ই আফরোজ সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শামসুল ইসলাম সাথে তিনি বলেন, আমি খুবই অসুস্থ্য। বগুড়া থেকে জামাই এর সঙে একটি ভাড়া গাড়ী নিয়ে রাজশাহীতে চিকিৎসার জন্য রওনা হই। কিন্তু সিংড়া থেকে পুলিশ গাড়ীটি ফিরিয়ে দিচ্ছে। অনেক অনুরোধ করেও কোন লাভ হয়নি। পরে বেশ কয়েকটি গাড়ীকে ফিরে যেতে দেখা যায়। এতে বৃষ্টির মধ্যে অনেক যাত্রীকে ভিজে দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

সিংড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক দাউদার মাহমুদ বলেন, দেশে কোন গণতন্ত্র নেই। বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজশাহীতে তাদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশ। আর পুলিশ এখানে বাঁধা দিয়ে গাড়ী ফিরিয়ে দিচ্ছে। তিনি এর তীব্র নিন্দা জানান। সিংড়া থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, আইন শৃংখলা রক্ষায় গাড়ীতে পুলিশী তল্লাসী করা হচ্ছে মাত্র।

এদিকে নয়া দিগন্তের বগুড়া অফিস থেকে আবুল কালাম আজাদ জানিয়েছেন, অঘোষিত পরিবহন ধর্মঘট, পথে পথে পুলিশী তল্লাশী , বাধা সহ নানাহয়রানী উপেক্ষা করে বগুড়া জেলা বিএনপি ও অঙ্গদলেরর কয়েক হাজার নেতাকর্মী রোববার রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে যোগ দেন। তবে তারা অধিকাংশ রাজশাহী পৌঁছেন বিকল্প পথে ।

বিএনপির একাধিক সূত্র জানায়, রোববার পূর্ব নির্ধারিত রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে যোগ দেয়ার ক্ষেত্রে বগুড়া জেলা বিএনপি ও অঙ্গদলের নেতাকর্মীরা আগেই পরিবহন মালিক ও আইন শৃংখলাবাহিনী রুঢ় আচরনের আংশকা করেছিলেন। তাই তারা বগুড়া থেকে রাজশাহী যাওয়ার বিকল্প পথ এবং কৌশল ঠিক করেছিলেন। সমাবেশ আয়োজনে শনিবার সন্ধায় পুলিশের অনুমতির পর কৌশলের অংশ হিসেবে রাতেই নেতাকর্মীরা বাস, ট্রেন, প্রাইভেট গাড়ী, মাইক্রোবাস নিয়ে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা দেন। শনিবার বিকেল থেকে রোববার ভোর পর্যন্ত কয়েক হাজার মানুষ রাজশাহী পৌছেন। সর্বশেষ রোববার সকাল থেকে বগুড়া টু রাজশাহী রুটে কোন ঘোষনা ছাড়াই সব ধরনের গণপরিবহন বন্ধ করে দেয় নাটোর জেলা পবিহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনগুলো। তাই বগুড়া থেকে অনেক নেতাকর্মী বাস, মাইক্রোবাস সহ অন্যান্য গাড়ী রিজার্ভ করে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা দিলে নাটোরের সিংড়ায় ট্রাফিক পুলিশ বাধা দেয়। প্রতিটি গাড়ীর যাত্রীদের দফায় দফায় তল্লাশী করে ফিরিয়ে দেয়া হয়। এর মধ্যে বাধা পেয়ে ফিরে যান বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক এমপি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু। পরে তিনি নওগাঁ হয়ে রাজশাহী পৌছেন বলে জানা গেছে। এ ছাড়া নাটোরের মতো নওগাঁতেও বিএনপি নেতাকর্মীদের বাধা দেয়া হয়। তাদের গাড়ী থেকে নেমে দিলে বিকল্প পথে গ্রামের ভিতরের সরু রাস্তা দিয়ে ছোট ছোট গাড়ী নিয়ে বিচ্ছিন্নভাবে রাজশাহীর সমাবেশে যোগ দেন। তবে বগুড়া জেলা বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দ শনিবারই রাজশাহী পৌঁছেন।

এদিকে ঘোষনা ছাড়া পরিবহন ধর্মঘটে সব ধরনের মানুষ চরম দূর্ভোগে পড়েন। বিশেষ করে সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবসে রাজশাহীর কর্মস্থলে যোগ দিতে যারা বগুড়া ও নাটোরের রাস্তায় ঘন্টার পর ঘন্টা বৃষ্টিরপানিতে ভিজে গাড়ীর দেখা পাননি তাদের কষ্টের সীমা ছিল না। অনেকে গাড়ী না পেয়ে তাই বাধ্য হয়ে বাড়ী ফেরেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2019 shawdeshnews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
themebashawdesh4547877