বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫৫ অপরাহ্ন

শেষ ওভারে অতিরিক্ত রান ছিল ‘অবৈধ’ : আম্পায়ার

শেষ ওভারে অতিরিক্ত রান ছিল ‘অবৈধ’ : আম্পায়ার

স্পোর্টস ডেস্ক: লর্ডসে অনুষ্ঠিত হওয়া ২০১৯ বিশ্বকাপে রোমাঞ্চকর এক ফাইনাল ম্যাচ দেখেছে বিশ্ব। কিন্তু এই ম্যাচকে ঘিরে অনেক প্রশ্ন ইতোমধ্যে সৃষ্টি হয়েছে।

এবার এই ম্যাচে শেষ ওভারে অতিরিক্ত রান দেয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সাবেক অস্ট্রেলিয়ান আম্পায়ার সাইমন ট্যাফেল।

বিতর্কের কেন্দ্রে ইংল্যান্ড ইনিংসের শেষ ওভারের ওভার-থ্রো৷ শেষ ওভারে জয়ের জন্য ইংল্যান্ডের দরকার ছিল ১৫ রান৷ ট্রেন্ট বোল্টের প্রথম দু’বলে কোনো রান নিতে পারেননি বেন স্টোকস৷ তৃতীয় বলে ছক্কা মারেন তিনি৷ চতুর্থ বলে ভাগ্যের জোরে ৬ রান পেয়ে যায় ব্রিটিশরা৷ দু’রান নেয়ার সময় রান-আউট থেকে বাঁচতে ডাইভ মারেন ব্যাটসম্যান স্টোকস৷ গাপ্তিলের ছোঁড়া বল স্টোকসের ব্যাটে লেগে বাউন্ডারিতে চলে যায়৷

শেষ দু’বলে জয়ের জন্য ৩ রান দরকার ছিল ব্রিটিশদের৷ পঞ্চম বলে ২ রান নেয়ার সময় রান-আউট হন আদিল রশিদ৷ শেষ বলেও একইভাবে ২ রান নেয়ার সময় রানআউট হন মার্ক উড৷ ফলে শেষ ২টি বলে ২ রান সংগ্রহ করে কোনো রকমে ম্যাচ টাই করতে সক্ষম হয় ইংল্যান্ড এবং ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে৷ সুপার ওভারেও ম্যাচ টাই হলে ম্যাচে বেশি বাউন্ডারি মারার জন্য ইংল্যান্ড বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়ে যায়৷

এখন প্রশ্ন হলো, ওভার-থ্রো’র সৌজন্যে ইংল্যান্ড ৬ রান না পেলে ম্যাচ টাই হতো কী না সন্দেহ৷ টেলিভিশন রিপ্লে’তে স্পষ্ট দেখা যায় যে, ডিপ মিডউইকেট থেকে মার্টিন গাপ্তিল বল ছোঁড়ার সময় স্টোকস ও তার ননস্ট্রাইকার পার্টনার আদিল রশিদ দ্বিতীয় রানের জন্য পরস্পরকে ক্রস করেননি৷ আইসিসি’র নিয়ম (১৯.৮) অনুযায়ী ওভার থ্রো’র বাউন্ডারির ক্ষেত্রে ফিল্ডার বল ছাড়ার মুহূর্তে ব্যাটসম্যানরা পরস্পরকে ক্রস করলে তবেই তাদের ফিল্ড রান যোগ হবে ওভার-থ্রো’র বাউন্ডারির সঙ্গে৷

তাই যদি হয়, তবে ইংল্যান্ডের ক্ষেত্রে ওভার-থ্রো’র বাউন্ডারির সঙ্গে বাড়তি এক রান যোগ হওয়া উচিত৷ অথচ ফিল্ড আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা ৬ রানের (২টি ফিল্ড রান ও ওভার-থ্রো’র চার) সংকেত দেন৷ এক রান কম হলে শেষ ২ বলে জয়ের জন্য তিনের বদলে ৪ রান দরকার হতো ব্রিটিশদের৷ ম্যাচের ছবিটা তখন বদলে যেতেও পারত৷

কিন্তু এই অতিরিক্ত রান দেয় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সাবেক অস্ট্রেলিয়ান আম্পায়র সাইমন ট্যাফেল। ফক্স স্পোর্টস অস্ট্রেলিয়াকে ট্যাফেল বলেন, ‘এই অতিরিক্ত রান দেয়া বৈধ না। যা আম্পায়াররা “পরিষ্কার ভুল” করেছে। যেখানে ব্যাটসম্যানরা তাদের দ্বিতীয় রান অতিক্রম করতে পারছেন না। আদিল রশীদকে স্টোকসের বদলে দ্বিতীয়-শেষ বলের মুখোমুখি হওয়া উচিত ছিল।’

তিনি আরো বলেন, ‘তাদের ছয়টি রান দেয়া উচিত ছিল না। সিদ্ধান্তটি টুর্নামেন্টের ফলাফলকে পরিবর্তন করে দিয়েছে। যা এক প্রকার অন্যায় হয়েছে। দুর্ভাগ্যবশত এ ধরনের ঘটনা মাঝে মাঝে ঘটে। এটিও খেলার একটি অংশ । তকে আশা করব, এটা কখনও আর ঘটবে না। এসময় সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত আম্পায়রদের।’

ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের আম্পায়ার অফ দ্য ইয়ার পুরস্কারের পাঁচবারের বিজয়ী টাউফেল এখন মেরিলবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি) আইন উপ-কমিটিতে আছেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2019 shawdeshnews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
themebashawdesh4547877