সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৩১ অপরাহ্ন

বাবার মৃত্যুর পর যা বললেন এরিক

বাবার মৃত্যুর পর যা বললেন এরিক

‍স্বদেশ ডেস্ক: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন তার পুত্র এরিক এরশাদ। আজ রোববার সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে এরিক বলেন, ‘তার মতো ভালো মানুষ আর আসবে না। কি হয়েছে আমি কিছু জানি না। আপনারা সবাই ওনার জন্য দোয়া করবেন।’

গত ২৬ জুন থেকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন ছিলেন এরশাদ। সেখানে এরশাদকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। তিনি রক্তে হিমোগ্লোবিনের স্বল্পতা, ফুসফুসে সংক্রমণ ও কিডনির জটিলতায় ভুগছিলেন।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তারকে সরিয়ে ১৯৮২ সালে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসেন জেনারেল এরশাদ।  তিনিই সম্ভবত পৃথিবীর একমাত্র সামরিক শাসক, ক্ষমতা ছাড়ার পর প্রায় তিন দশক জাতীয় রাজনীতিতে টিকে ছিলেন, ছিলেন ক্ষমতার সমীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। তার মৃত্যুতে অভিভাবক শূন্য হলো দেশের তৃতীয় বৃহত্তম রাজনৈতিক দল জাতীয় পার্টি (জাপা)।

১৯৯০ সাল পর্যন্ত দেশ শাসন করেছেন এই সামরিক শাসক। জাতীয় পার্টি গঠন করেন ১৯৮৬ সালে। গণতন্ত্রের কথা বলে সে বছরই সংসদ নির্বাচন দেন তিনি।

হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ ১৯৩০ সালের পহেলা ফেব্রুয়ারি রংপুর জেলায় দিনহাটায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৫২ সালে তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন। ১৯৬০-১৯৬২ সালে তিনি চট্টগ্রাম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের কেন্দ্রে অ্যাডজুট্যান্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ১৯৬৬ সালে তিনি কোয়েটার স্টাফ কলেজ থেকে স্টাফ কোর্স সম্পন্ন করেন। ১৯৬৮ সালে তিনি শিয়ালকোটে ৫৪ ব্রিগেডের মেজর ছিলেন। ১৯৬৯ সালে লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসেবে পদোন্নতি লাভের পর ১৯৬৯-১৯৭০ সালে ৩য় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট-এর অধিনায়ক ও ১৯৭১ – ১৯৭২ সালে ৭ম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট এর অধিনায়ক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2019 shawdeshnews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
themebashawdesh4547877