রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫:৪৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
স্বেচ্ছাসেবক লীগের র‌্যালি থেকে ফেরার পথে ছুরিকাঘাতে কিশোর নিহত দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় চরম তাপপ্রবাহ আসন্ন বিপদের ইঙ্গিত দ্বিতীয় ধাপে কোটিপতি প্রার্থী বেড়েছে ৩ গুণ, ঋণগ্রস্ত এক-চতুর্থাংশ: টিআইবি সাড়ে ৪ কোটি টাকার স্বর্ণসহ গ্রেপ্তার শহীদ ২ দিনের রিমান্ডে ‘গ্লোবাল ডিসরাপ্টর্স’ তালিকায় দীপিকা, স্ত্রীর সাফল্যে উচ্ছ্বসিত রণবীর খরচ বাঁচাতে গিয়ে দেশের ক্ষতি করবেন না: প্রধানমন্ত্রী জেরুসালেম-রিয়াদের মধ্যে স্বাভাবিককরণ চুক্তির মধ্যস্থতায় সৌদি বাইডেনের সহযোগী ‘ইসরাইলকে ফিলিস্তিন থেকে বের করে দাও’ এসএমই মেলার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ইরান ২ সপ্তাহের মধ্যে পরমাণু অস্ত্র বানাতে পারবে!
ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মাছির ভন ভন

ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মাছির ভন ভন

স্বদেশ ডেস্ক:

সামনে পেছনে খোলামেলা জায়গা, দৃষ্টিনন্দন সুউচ্চ ভবন নিয়ে রাজধানীর মুগদাপাড়ায় অবস্থিত ৫০০ শয্যার মুগদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল। বাইরে থেকে চাকচিক্য দেখা গেলেও ভেতরের চিত্রটা কিন্তু তার উল্টো। ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ও তাদের স্বজনদের চাপে সরকারি হাসপাতালটির ভেতরের পরিবেশ এতই নোংরা হয়েছে যে, সেখানে সুস্থ মানুষের টিকে থাকাই দায়।

প্রতিটি ওয়ার্ডেই ভন ভন করে ঘুরে বেড়াচ্ছে অজস্র মাছি। সুযোগ পেলেই হুল ফুটাচ্ছে লুকিয়ে থাকা মশা। ওয়ার্ডে নির্দিষ্ট শয্যার বাইরে যেসব ডেঙ্গু রোগী মেঝেতে জায়গা পেয়েছেন, ব্যবস্থা না থাকায় মশারি খাটাতে পারছেন না। ফলে মশা-মাছির উৎপাতে সবাই নাজেহাল। রোগীরা আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। গতকাল শনিবার সরেজমিন এমন চিত্রই দেখা গেছে।

অবশ্য হাসপাতালের নার্স ও চিকিৎসকদের অভিযোগ, রোগীর স্বজনরাই যেখানে সেখানে খাবার-দাবার ফেলে পরিবেশ নোংরা করছেন। পর্যাপ্ত পরিচ্ছন্নতাকর্মী না থাকায় হাসপাতালকে সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা যাচ্ছে না। এ প্রসঙ্গে মুগদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. মো. খায়রুল আলম আমাদের সময়কে বলেন, ‘একজন রোগীর সঙ্গে দু-তিনজন স্বজন থাকেন। খাওয়ার সময় তারা সচেতন থাকেন না। ফলে খাবারের উচ্ছিষ্ট মেঝেতে পড়ে পরিবেশ নোংরা হচ্ছে। তাতেই মশা-মাছি ভন ভন করে।’

উপপরিচালক আরও বলেন, ‘আমাদের হাসপাতালে জনবলের সংকট। এ কারণেই আপদকালীন সেবা দিতে একটু হিমশিম খেতে হচ্ছে। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের (ডিজি) কাছে জনবল চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু দিতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন তিনি। তাই আমরা হয়তো আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে কিছু জনবল নিয়োগ দিয়ে হাসপাতালের কার্যক্রম আরও জনবান্ধব করব।’

বেশ কয়েকজন সিনিয়র স্টাফ নার্স জানিয়েছেন, প্রতিটি ওয়ার্ডে যেখানে তিন থেকে চারজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী প্রয়োজন, সেখানে আছে মাত্র একজন। তাকে আবার অন্য কাজও করতে হয়। ফলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ ঠিকমতো হচ্ছে না। এ ছাড়া রোগীর স্বজনরাও সচেতন নন। তারাই হাসপাতালের পরিবেশ নোংরা করছেন। এ কারণে মাছির আনাগোনা বাড়ছে। তবে মশা নেই বলে দাবি নার্সদের।

এদিকে গতকাল পর্যন্ত মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত ৩১৯ রোগী ভর্তি ছিল। তাদের মধ্যে শিশু ২৬টি। এ হাসপাতালে গত ১ আগস্ট মিনারা (৩৫) নামে এক নারী এবং মিলন (৩০) নামে এক যুবক ২৭ জুলাই ডেঙ্গুতে মারা গেছেন। একজন সিনিয়র স্টাফ নার্স জানান, চার থেকে পাঁচজন নার্সের কাজ করতে হয় এক থেকে দুইজনকে। ফলে রোগীদের সঠিক সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2019 shawdeshnews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
themebashawdesh4547877