বৃহস্পতিবার, ২৫ Jul ২০২৪, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন

সেন্টমার্টিনে মিয়ানমারের গোলা, যা বললেন ওবায়দুল কাদের

সেন্টমার্টিনে মিয়ানমারের গোলা, যা বললেন ওবায়দুল কাদের

স্বদেশ ডেস্ক:

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মিয়ানমারের গোলা সেন্টমার্টিনে পড়ার বিষয়টি দেশটির সাথে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, চেষ্টা চলছে এবং বাংলাদেশ যুদ্ধ এড়িয়ে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা অব্যাহত রাখবে। তবে আক্রান্ত হলে জবাব দেয়া হবে।

শনিবার (১৫ জুন) বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমারের কিছু অভ্যন্তরীণ সংকট রয়েছে। এদের ৫৪টি জাতিগোষ্ঠী রয়েছে। তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব রয়েছে। তাদের অভ্যন্তরীণ সংকটে যদি আমরা ভুক্তভোগী হই তবে তা হবে অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। সেখানে ক্ষমতায় রয়েছে সামরিক সরকার। আমরা আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করছি এবং যুদ্ধ এড়িয়ে তা অব্যাহত রাখব। তবে আমাদের ওপর হামলা হলে আমরা সেই হামলার জবাব দেব। আমাদের অবমূল্যায়ন করার কোনো কারণ নেই। আমরা প্রস্তুত আছি।’

বাংলাদেশকে গ্রাস করা রোহিঙ্গা সংকটের কথা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবিক কারণে উদারভাবে সীমান্ত খুলে দিয়েছেন। এজন্য তাকে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ বলা হয়। এখন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এবং সংস্থাগুলো এর জন্য আমাদের প্রশংসা ও শ্রদ্ধা করে।”

মন্ত্রী বলেন, ‘তবে রোহিঙ্গাদের জন্য সহায়তার পরিমাণ উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে। চলমান অর্থনৈতিক সংকট নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। ১০-১২ লাখ রোহিঙ্গার অতিরিক্ত বোঝা চাপ তৈরি করছে। বিশ্বের বড় বড় দেশ যারা এই সংকট নিয়ে কথা বলে, তাদের লিপ সার্ভিসের (মৌখিকভাবে প্রশংসা) আমাদের দরকার নেই। রোহিঙ্গাদের বোঝা আমাদের কাঁধ থেকে তুলে নিতে হবে। আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী যেখানেই যান, সেখানেই রোহিঙ্গা ইস্যু তুলে ধরেন।’

সড়কে ঈদযাত্রাকে কেন্দ্র করে যানজট প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, কোথাও কোথাও যানজট থাকলেও ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করার প্রয়োজন হচ্ছে না।

যেকোনো মুহূর্তে সরকারের পতন ঘটবে বলে বিএনপির এমন দাবি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এক কথায় এটা তাদের দিবাস্বপ্ন। গণঅভ্যুত্থান বা নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তন হয়। ২০২৪ সালের ৭ জানুয়ারি এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। গণঅভ্যুত্থানে সরকারের পতন হবে এমন ধারণা হাস্যকর।’

‘এই দেশে একমাত্র জনপ্রিয় অভ্যুত্থান ছিল ১৯৬৯ সালে। এরপর আর কোনো অভ্যুত্থান হয়নি। ১৯৯০ সালে গণআন্দোলন হয়েছিল, অভ্যুত্থান নয়, যার ফলে স্বৈরশাসক এরশাদের পতন ঘটেছিল।’

বাংলাদেশ সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু’র সাম্প্রতিক মন্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা আমাদের সংবিধান অনুসরণ করেছি এবং তা অব্যাহত রাখব। ডোনাল্ড লু কী বলেছেন তা নিয়ে মাথা ঘামানোর কোনো প্রয়োজন আছে বলে আমরা মনে করি না। তারা কখনো বিভিন্ন বিষয়ে আমাদের সমালোচনা করবে, কখনো প্রশংসা করবে; সেটা তাদের ব্যাপার। আমরা আমাদের নীতির ভিত্তিতে আমাদের সংবিধান অনুসরণ করে এগিয়ে যাব।’

এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র : ইউএনবি

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2019 shawdeshnews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
themebashawdesh4547877